• বুধবার   ০১ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৮ ১৪২৬

  • || ০৭ শা'বান ১৪৪১

ষাট গম্বুজ বার্তা
সর্বশেষ:
কুমিল্লায় মাইক্রোবাস খাদে পড়ে নিহত ৩ ১ বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠান না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় ২৯ বাংলাদেশির প্রাণহানী দিনাজপুরে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত
৪০

করোনার প্রভাবে কর্ণফুলী টানেলের কাজে বিঘ্ন সৃষ্টির আশঙ্কা

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ১৪ মার্চ ২০২০  

চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেলের কাজ ইতোমধ্যে ৫১ শতাংশ সম্পন্ন হলেও করোনা ভাইরাসের প্রভাবে বাকি কাজ শেষ করা নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে চীন থেকে কাঁচামালের পাশাপাশি কর্মরত প্রকৌশলী আসতে দেরি হওয়ায় শংকা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা। চীনে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়ন্ত্রণে না আসলে কর্ণফুলী টানেলের নির্মাণ কাজে তার প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও।
চীনের সাংহাইয়ের 'ওয়ান সিটি টু টাউন' এই ধারণাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামে এগিয়ে চলছে কর্ণফুলী টানেলের নির্মাণ কাজ। বর্তমানে একটি টিউব টানেলের ২ হাজার ৪৫০ মিটারের মধ্যে ১ হাজার ২২৮ মিটার বোরিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। চীনের জিয়াংসু প্রদেশের জেং জিয়াং শহরে টানেল সেগম্যান্ট কাস্টিং প্ল্যান্টে সেগম্যান্ট নির্মাণের কাজ চলছে। গত জানুয়ারি পর্যন্ত ১৯ হাজার ৬১৬ টি সেগমেন্টের মধ্যে ১০ হাজার ৫৮২ টি টানেল প্রকল্পে পৌঁছেছে। এর মধ্যে ৪ হাজার ৯১২ টি টানেলে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

বর্তমানে টানেলের ৫১ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে জানান প্রকল্প পরিচালক।

কর্ণফুলী টানেলর প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশিদ বলেন, আমাদের এই প্রোজেক্টের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৫১ ভাগ। এখনও আমাদের সময় আছে। আমরা ২০২২ সালের মধ্যে কাজ শেষ করতে পারব। 

এদিকে, নির্মাণ প্রকল্পে ২৯৩ জন চীনের নাগরিক কর্মরত আছেন। এর মধ্যে ৭২ জন নববর্ষের ছুটিতে চীনে গিয়েছিলেন। ছুটি শেষে ফিরে আসেন ৪৫ জন। এর মধ্যে ২৮ জনের ১৪ দিনের কোয়েরেন্টাইন শেষে তারা কাজে যোগ দিয়েছেন।

তবে, চীনে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি বিলম্বিত হলে কর্ণফুলী টানেলের কাজে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা করছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, কর্ণফুলী টার্নেলের নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে। এ নির্মাণ কাজ সময় ক্ষেপন করেনি। কাজ যথারীতি এগিয়ে চলছে। করোনায় যদি কোনও সমস্যা হয় তাহলে হয়তো বিলম্ব হতে পারে। 

১০ হাজার ৩৭৪ কোটি ৪২ লাখ টাকার টানেল প্রকল্পে চীন সরকার দিচ্ছে ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা। বাকিটা দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে টানেলের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। 
 

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর