• সোমবার   ২১ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪২৮

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪২

ষাট গম্বুজ বার্তা

কাউকে ব্লাডের জন্য কল দেয়ার আগে মাথায় রাখুন কিছু বিষয়

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ৩১ মে ২০২১  

অসুস্থ ব্যক্তির সেবা করা মানুষের ধর্ম। আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা মানুষের উপকারে নিজেকে বিলিয়ে দেন। কোনো প্রকার স্বার্থ ছাড়াই। জীবন বাঁচাতে, সার্জারিতে কিংবা গুরুতর অসুস্থতা থেকে সুস্থ হয়ে উঠতে অনেকেরই রক্তের প্রয়োজন হয়। যা নিকট আত্মীয়, বন্ধু-বান্ধব কিংবা দূরের কেউ, যার সঙ্গে ব্লাড গ্রুপ মেলে তার কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়।

এক্ষেত্রে যারা রক্ত খুঁজে দেন তারাই জানেন ১ ব্যাগ ব্লাড খুঁজে বের করা কতটা কষ্টের। সময়, শ্রম দিয়ে ডোনারকে খুঁজে বের করতে হয়। অনেকেই তো সেসব  জানেনই না। এমনকি সেটা জানার প্রয়োজনও তারা বোধ করেন না।

তবে অত্যন্ত বেদনাদায়ক ব্যাপারটি হলো রক্তদাতার সঙ্গে রোগীর রিলেটিভদের বা পরিচিতদের ব্যবহার অনেক ক্ষেত্রেই বিবেকহীনতার পরিচয় দিয়ে থাকে। ডোনারকে যথাযথ সম্মান দেয়া তো দূর অস্ত, মনে হয় ব্লাড নিয়ে যেন ডোনারকেই তারা কৃতার্থ করছেন। তারা ডোনারের সামাজিক অবস্থানের ওপর নিজেরা একটি মনগড়া ধারণা তৈরি করেন। ডোনারদের সঙ্গে এমন ব্যবহার করেন যে মনে হয় রক্তদাতাই অধমর্ণ।  

এই ধরণের আচরণ মোটেও কাম্য নয়। কারণ যে মানুষটা তার সব থেকে মূল্যবান বস্তুটি দিয়ে আপনাকে সাহায্য করছেন, তার প্রাপ্য সম্মানটুকুও দেবেন না, তা তো হতে পারেনা। তাই বিনা স্বার্থে যিনি রক্ত দেন, তাকে সম্মান করা আপনার একটি অবশ্য কর্তব্য।
 
প্রয়োজনে কাউকে ব্লাডের জন্য কল দেয়ার আগে আমাদের কিছু বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখা জরুরি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সে বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত-

>> ডোনারের যাতায়াত খরচ।

>> যে বেলায় ব্লাড দেবে ওই বেলার খাওয়ার খরচ।

>> ডাব, স্যালাইন পানি, কিছু ফলমূল কিনে দেয়ার খরচ দেয়াটা কমনসেন্সের ব্যাপার।  টাকা দিতে এবং নিতে অস্বস্তিবোধ হয় অনেক সময়ই। টাকা সিংহভাগ রক্ত দাতাই এই খাতে নেন না, অপমানিত বোধ করেন। সেক্ষেত্রে এসব খাদ্য ও পানীয়ের ব্যবস্থা করুন, যত কষ্ট বা ঝামেলাই হোক।

>> রক্তদানের পরবর্তী ২৪ ঘন্টা ডোনারের খোঁজ খবর রাখুন। এটি অতি সাধারণ সৌজন্যবোধ।

>> পারলে কোনো এক সময় বাসায় বা রেস্তোরাঁয় বা অন্য কোথাও একদিন দাওয়াত দিয়ে খাওয়ান। একজন দ্বায়িত্ববান মানুষ যার মধ্যে নূন্যতম সভ্যতা আছে, তিনি প্রতিদানের কথা সব সময় আমলে নিয়ে থাকেন, যদিও রক্ত দানের যথাযথ প্রতিদান দেয়া সম্ভব নয়।

>> মানুষের প্রতি ভালোবাসা থেকেই মানুষ রক্তদান করে থাকে। কোনো প্রত্যাশা থেকে নয়, এটি মনে রাখবেন।  

>> আমার অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি, যারা ব্লাড দেন তাদের সিংহভাগই ছাত্র, মেসে থেকে পড়াশুনা করে থাকেন। তারা প্রতিনিয়ত ব্লাড দেন। অনেক সময় দেখা যায় পরের দিন এক্সাম, তবুও ব্লাড দিয়ে আসে তারা।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা