• বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭

  • || ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ষাট গম্বুজ বার্তা
২১৯

চিতলমারীর কৃষকদের পাশে ছাত্রলীগ

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০২০  

বৃষ্টি ভেজা পাকা ধানের শীষ মাটিমুখে নুইয়ে পড়েছে। বৈশাখী বাতাসে খন্ড খন্ড মেঘমাখা রোদ। গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে থেমে থেমে। অন্যান্য বছরের মতো ভিন্ন এলাকা হতে আসা ধান কাটা শ্রমিক ‘পরবাসি’র জন্য আর অপেক্ষা নয়। ‘কৃষকের পাশে ছাত্রলীগ’ স্লোগান তুলে শনিবার কাস্তে কাজে নেমে পড়ে ২০ জনের একটি দল। তাদের ১০ জন কাটা শুরু করে ধান। বাকী ১০ জন কাটা ধান বয়ে পৌঁছে দিচ্ছে কৃষকের বাড়ি। 

ঢাকা দক্ষিণ মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিবাস মজুমদারের বাড়ি বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলায়। তিনি চরবানিয়ারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি গোবিন্দ মজুমদারের সাথে সমন্বয় করে স্থানীয় ছাত্রলীগ সদস্যদের নিয়ে নেমে পড়েছেন কাজে। শনিবার তারা খলিশাখালী গ্রামের অচিন্ত বিশ্বাসের এক বিঘা জমির ধান কাটা শুরু করেছেন সকাল থেকেই।

ঢাকার ছাত্রলীগ নেতা নিবাস মজুমদার বলেন, ‘করোনা ভাইরাস প্রতিরোধমূলক বিধিনিষেধ মেনে ধান কাটা শুরু করেছি। বাগেরহাট-১ আসনের এমপি শেখ হেলাল উদ্দীনের নির্দেশে এবং ঢাকা দক্ষিণ মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের আহম্মেদের পরামর্শে আমরা বিপদাপন্ন চাষীর পাঁকা ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছি। এখানে চরবানিয়ারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা সহযোগিতা করছেন। আমাদের এই কার্যক্রম চলমান থাকবে। কোন চাষী আমাদের সহযোগিতা চাইলে আমরা তার প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবো।’

ষাটোর্ধ বয়সী কৃষক অচিন্ত বিশ্বাস জানান, তিনি ধান কাটা শ্রমিক পাচ্ছিলেন না। এদিকে মাঠে ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। গ্রামের তরুণেরা খবর পেয়ে সাহায্যের জন্য ছুটে এসেছেন। তারা ধান কেটে সঙ্গে সঙ্গে বাড়িতে তুলে দিচ্ছে। খুব উপকার করছে।

অপরদিকে, চিতলমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋতুরাজ সরকার বলেন, ‘মোংলা, রামপালসহ বাইরের এলাকা হতে শতাধিক লোক ধান কাটতে আসে। তারা এবার করোনার বিধিনিষেধের কারণে আসতে পারেনি। কোন কৃষক সাহায্য চাইলে তাকে সাহায্য করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ধান কাটার জন্য ২৯টি ছোট মেশিন কৃষকদের দেয়া হয়েছে। তা দিয়ে পর্যায়ক্রমে ধান কাটা হচ্ছে।’ 

তিনি আরো জানান, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে বোরো ধান আবাদ হয় ১১ হাজার ৪৭০ হেক্টর এবং উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ৮৫ হাজার ৬১৫ মেট্্িরকটন। এর মধ্যে উফশী জাতের ধান রয়েছে নয় প্রকার এবং হাইব্রিড জাতের ধান রয়েছে ৪৩ প্রকার। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বোরো আবাদ হয়েছিল ১১ হাজার ৭৩০ হেক্টর জমিতে এবং ফলন হয়েছিল ৮৯ হাজার ৯৯৩ মেট্রিক টন ধান। 

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা
বাগেরহাট বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর