• রোববার   ২৯ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৫ ১৪২৬

  • || ০৪ শা'বান ১৪৪১

ষাট গম্বুজ বার্তা
সর্বশেষ:
বাগেরহাটে ছিটানো হচ্ছে জীবাণুনাশক পানি বাগেরহাটে হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৩২৮ জন ২৭তম স্প্যানে পদ্মা সেতুর চার কিলোমিটারের বেশি দৃশ্যমান করোনায় নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি, সুস্থ আরও ৪ জন টাঙ্গাইলে সিমেন্টভর্তি ট্রাক উল্টে নিহত বেড়ে ৬
২০৩৯

ফিরে দেখা সরকারের সফলতা : যুদ্ধাপরাধীদের বিচার

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯  

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। রুপকল্প ২০২১ এবং একশ’ বছরের ডেল্টা প্লানকে সামনে রেখে দূর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। উন্নয়নের মহান রুপকার, গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তাধারা ও যুগোপযোগী বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে দেশ থেকে দূর হয়েছে ক্ষুধা-দারিদ্র্য-বেকারত্ব। শিক্ষা, কৃষি, শিল্প, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, নারীর ক্ষমতায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠাসহ দেশের প্রতিটি সেক্টরে হয়েছে অভূতপূর্ব উন্নয়ন। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক পরিবেশনা ‘উন্নয়নের ১১ বছর’।

১৯৭১ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্তদের বিচার বিষয়ে আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালে তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে এই গণদাবী অন্তর্ভুক্ত করে। ২০০৮-এর ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নিরঙ্কুশভাবে বিজয় লাভ করার পর আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি অনুযায়ী বিচারের উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০০৯ সালের ২৯ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে এই বিষয়ে একটি প্রস্তাব পাশ হয়। সংসদে গ্রহীত প্রস্তাব বাস্তবায়নে সরকার বিদ্যমান আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালস অ্যাক্ট ১৯৭৩ অনুযায়ী অভিযুক্তদের তদন্ত এবং বিচারের উদ্যোগ গ্রহণ করে। সরকারের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত ঘোষণাটি আসে ২০০৯ সালের ২৫ মার্চ। সরকার ট্রাইব্যুনাল অ্যাক্ট সংশোধনের জন্য ২০০৯ সালের ২১ মে বিশেষজ্ঞদের মতামত  চেয়ে ট্রাইব্যুনাল এ্যাক্টটি আইন কমিশনে পাঠায়। আইন কমিশন দেশের বিশেষজ্ঞ আইনজীবী, বিচারপতি, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং কয়েকজন আইনজ্ঞের মতামতের ভিত্তিতে ১৯৭৩ সালে প্রণীত ট্রাইব্যুনালে কিছু নির্দিষ্ট বিষয়ে সংশোধন আনার জন্য সরকারকে পরামর্শ দেয়।

আইন কমিশনের সুপারিশ বিবেচনায় নিয়ে ১৯৭৩ সালে প্রণীত আইনকে যুগোপযোগী করার জন্য ২০০৯ সালের ৯ জুলাই আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কিছু সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ করা হয়। স্বাধীনতা লাভের ৩৯ বছর পর যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্তদের বিচারের জন্য ২০১০ সালের ২৫ মার্চ ট্রাইব্যুনাল, আইনজীবী প্যানেল এবং তদন্ত সংস্থা গঠন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতার এবং তাদের অপরাধের বিষয়ে তদন্তের উদ্যোগ নেয় ট্রাইব্যুনাল। বিচার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পুরাতন হাইকোর্ট ভবনকে আদালত হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

বিচারের রায় ২০১৩ সালের ২১ জানুয়ারি প্রথম রায়টি দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। রায়ে জামায়াতে ইসলামীর সাবেক রোকন আবুল কালাম আযাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারের ফাঁসির আদেশ হয়। পলাতক থাকায় তার রায় এখনও কার্যকর করা যায়নি। এ পর্যন্ত ৩০ মামলার রায় হয়েছে। এর মধ্যে আপীল বিভাগে ৭টি মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এখনও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে নিষ্পত্তির অপেক্ষায় ১৯টির বেশি মামলা। সাতটি রায়ের মধ্যে ৬টিতে ফাঁসির আদেশ হয় কার্যকর করেছে সরকার। প্রথম ফাঁসির আদেশ কার্যকর করা হয় ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার । দ্বিতীয় অপরাধী হিসেবে ২০১৫ সালের ১১ এপ্রিল রাত ১০টা ১ মিনিটে জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানকে ফাঁসিতে মৃত্যুদÐ কার্যকর করা হয়। জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহ উদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয় ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে। জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে ২০১৬ সালের ১১ মে রাত ১২টা ১০ মিনিটে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়। জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদের সদস্য মীর কাসেম আলীর ফাঁসি কার্যকর করা হয় ২০১৬ সালের ৩ সেপ্টেম্বর কাশিমপুর কারাগারে রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে। এছাড়া আমৃত্যু কারাদন্ড ভোগ করছে জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী। ২০১৪ সালের ২৩ অক্টোবর কারাগারে মারা গেছে ৯০ বছরের কারাদন্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের সাবেক আমির গোলাম আযম। বিএনপির সাবেক নেতা আবদুল আলীম আজীবন কারাদন্ড ভোগ করা অবস্থায় ২০১৪ সালের ৩০ আগস্ট মারা যায়।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর