• মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৫ ১৪২৭

  • || ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ষাট গম্বুজ বার্তা
৯০

সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে মোরা পরের তরে

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০  

বাংলাদেশ, স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনা এক দেশের নাম। ৭১ এর সেই মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে পাওয়া আমাদের এই মাতৃভূমি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধপরবর্তী সময় রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের মাধ্যমে সারা বিশ্বের সাথে এক সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন যার ঐতিহ্য এবং ধারাবাহিকতা দেখা যায় বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার মাঝেও। প্রতিবেশী দেশসমূহ তথা বিশ্ব আঙ্গিনায় তার যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত এবং পররাষ্ট্রনীতি প্রশংসিত হয়েছে বারবার।

ঠিক তেমনি করেই প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী "সাবকা সাথ, সাবকা বিকাশ" অর্থাৎ "সবার সাথে, সবার উন্নতি" মূলমন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে দক্ষিন এশিয়ার প্রতিবেশী রাষ্ট্রসমূহ বিশেষত বাংলাদেশের সাথে শক্তিশালী কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখে এগিয়ে চলার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন যার আহবান তিনি জানিয়েছেন ন্যাম এবং জি-২০ এর ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনে।

জনকেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি:

মহামারী এবং লকডাউন এর ফলে বিশ্বায়নের কয়েকটি মৌলিক বিষয় আমরা ঘনিষ্ঠভাবে দেখার সুযোগ পেয়েছি । আমরা বর্তমানের বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক শৃঙ্খলা রূপরেখা তৈরি করে এমন বিষয় সম্পর্কেও ভাবতে বাধ্য হয়েছি। এটা আমাদের চিন্তাধারাকে কেন্দ্রীভূত হতে সাহায্য করেছে।
 
আমরা কীভাবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে আমাদের সম্পর্কের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাই সে নিয়ে আমাদের চিন্তাভাবনার কথা প্রতিফলিত হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাম্প্রতিক ভার্চুয়াল ন্যাম এবং জি -২০ শীর্ষ সম্মেলনে। করোনা মহামারীতে আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার ঘাটতি এবং সীমাবদ্ধতাগুলি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সুচারুরুপে উল্লেখ করেছিলেন। সংকীর্ণ অর্থনৈতিক অবস্থা নির্দিষ্টভাবেই বিশ্বায়নকে সংজ্ঞায়িত করেছে। আমরা সমস্ত মানবজাতির সম্মিলিত স্বার্থকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে প্রতিযোগী ব্যক্তি স্বার্থকে ভারসাম্যপূর্ণ করার লক্ষ্যে নিজেদের মধ্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছি।  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিশ্বায়ন ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতায় জনকেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গির আহ্বান জানান।
 
জনগণকেন্দ্রিক আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলা রচনায় ভারত দীর্ঘদিন ধরে গঠনমূলক ভূমিকা পালন করেছে। আমরা দক্ষিণের  অংশীদার দেশগুলির সাথে আমাদের বিকাশের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিয়েছি।  ইন্দোনেশিয়া, ইয়েমেন, ইরাক এবং মোজাম্বিকের মতো ভৌগোলিকভাবে বৈচিত্র্যময় দেশগুলিতে আমরা আমাদের  মানবিক সহায়তা এবং দুর্যোগ ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেছি।  আমরা বর্তমান মহামারীর সময় আমাদের প্রচুর বন্ধুরাষ্ট্রকে সহায়তা প্রদান করেছি। আমরা আন্তর্জাতিক সোলার অ্যালায়েন্স এবং দুর্যোগ প্রতিরোধক অবকাঠামোগত জোটের মতো গঠনমূলক, সম্মুখমুখী বিষয়াদির মাদ্ধমে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলিকে তরান্বিত করেছি।

প্রতিবেশীই প্রথম:

নভেল করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব একটি বড় ভূ-রাজনৈতিক ধাক্কা হিসাবে এসেছে, এবং এটি বিশ্ব রাজনীতিতে দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব ফেলবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই নতুন বৈশ্বিক পরিবেশে ভারতের পছন্দ, চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগগুলিও প্রভাবিত হবে। "প্রতিবেশীই প্রথম" হল আমাদের নীতির মৌলিক দৃষ্টিভঙ্গি। আমরা দক্ষিণ এশিয়ায় আমাদের প্রতিবেশীদেরকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অগ্রাধিকার প্রদান করেছি।  বর্তমান সংকট চলাকালীন সময়েও এটি স্পষ্ট হয়েছিল যে প্রধানমন্ত্রীর প্রথম আঞ্চলিক / বিশ্বব্যাপী ব্যস্ততা মূলত দক্ষিণ এশিয়ার নেতাদের সাথেই ছিল। আমি উল্লেখ করতে পারি যে মহামারীর পরে আমার প্রথম ভ্রমণটি ছিল আমাদের প্রতিবেশী এবং ঘনিষ্ঠ বন্ধু বাংলাদেশে।

আমরা আমাদের আশেপাশের প্রতিবেশীদের প্রচুর সম্ভাবনা দেখতে পাই,  চ্যালেঞ্জও রয়েছে। এগুলি সমাধানে আমরা যথাযথভাবে কাজ করব।  তবে এটি অবশ্যই লক্ষণীয় যে আমাদের সক্ষমতা এবং সংস্থান বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আমরা আমাদের বন্ধুদের সাথে উন্নয়নের অংশীদারিত্বের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে সুসম্পর্ক স্থাপন করি।  এটি আমাদের সদিচ্ছার, সক্ষমতা এবং "সাবকা সাথ, সাবকা বিকাশ" নীতিতে একটি বাস্তব প্রদর্শনী। উন্নয়নের অংশীদারিত্ব একটি অগ্রগতিমূলক কাজ এবং আমরা কীভাবে অংশীদারিত্বগুলি নিয়ন্ত্রন করতে পারি এবং আমাদের বন্ধুদের অগ্রাধিকার এবং পছন্দসই রোডম্যাপগুলি অনুযায়ী চাহিদা পূরণ করতে পারি সেইদিকে নিবিড় নজর রাখছি।  আমাদের মূল লক্ষ্য টেকসই প্রকল্পগুলি সম্পাদন এবং স্থানীয় সম্প্রদায়ের সক্ষমতা জোরদার অব্যাহত রাখা।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর