ব্রেকিং:
আশুগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত
  • শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ৭ ১৪২৮

  • || ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ষাট গম্বুজ বার্তা
সর্বশেষ:
পীরগঞ্জে হামলার ঘটনায় আরো ১১ জন গ্রেপ্তার রাতে আসবে সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ টিকা বাগেরহাটসহ ২৬ জেলায় পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ

মজুদ পেঁয়াজ বাজারে আসায় ঝাঁজ কিছুটা কমেছে

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০২১  

কিছু ফড়িয়া ও অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে বাজারে পেঁয়াজের মূল্য দ্বিগুণ হওয়ার পর আজ মঙ্গলবার কিছুটা কমেছে। অতিরিক্ত মুনাফার আশায় মজুদ করা পেঁয়াজ বাজারে একসাথে চলে আসায় দাম কমার অন্যতম কারণ বলে জানা গছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, প্রয়োজনের ৮০ শতাংশ পেঁয়াজের উৎপাদন এখন দেশেই হয়। ২০ শতাংশ পেঁয়াজ ভারতসহ অন্যান্য দেশ থেকে আমদানি করতে হয়। বছরের এ সময়ে মূলত দেশে পেঁয়াজের ঘাটতি দেখা দেয়। তাছাড়া কিছু দিন আগে ভারতের বেঙ্গালুরে প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে সেখানে পেঁয়াজ আবাদের কিছুটা ক্ষতি হওয়ায় সেদেশে পণ্যটির দাম বেড়ে যায়। আর এর অজুহাতে আমাদের দেশে ব্যবসায়ীরা বাড়িয়ে দেন দাম। যদিও গুদামে পেঁয়াজের যথেষ্ঠ মজুদ রয়েছে।

গত ৩/৪ দিন আগেও বাজারে পেঁয়াজের ঝাঁজ ছিল বেশ। তবে মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) থেকে প্রতিকেজি পেঁয়াজের মূল্য ৫/৭ টাকা কমে গেছে। বর্তমানে খুচরা বাজারে মানভেদে ৬৫ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

খুলনার বাগদাদ ট্রেডিং এর ম্যানেজার মোঃ সুজন জানান, ভারতে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পেঁয়াজের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সেখানকার বাজারে পেঁয়াজের দাম একটু বেশী। বর্তমানে এটা আমাদের ৫৫ টাকায় ক্রয় করতে হচ্ছে। ভারত থেকে প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৩৩ রুপিতে ক্রয় করতে হয়। বাংলাদেশ বর্ডার পর্যন্ত আনতে খরচ হয় ৪৭ টাকা। তারপর কাস্টমসে শুল্ক দিতে হয় শতকরা ৫ টাকা। ভারতীয় বাজারের প্রভাব আমাদের দেশের বাজারেও পড়েছে। এ কারণে পেঁয়াজের দাম বেড়ে গিয়েছিল। তাছাড়া এটা বেশীদিন রাখা যায়না। ভারতীয় পেঁয়াজের দাম উর্ধ্বগতি দেখে দেশের চাষীরা অধিক মুনাফার আশায় গত কয়েকদিন পণ্যটি বাজারে ছাড়ায় দাম কমে গেছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

সোনাডাঙ্গাস্থ পাইকারী কাঁচা বাজারের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী মোড়লগঞ্জ বাণিজ্য ভান্ডারের মালিক আঃ হালিম বয়াতি জানান, দেশী পেঁয়াজের দাম প্রতি কেজিতে ১০ টাকা করে কমে গেছে। দাম বেড়ে যেতে পারে বলে তিনি বেশ কিছু পেঁয়াজ ক্রয় করেছিলেন। কিন্তু দাম হঠাৎ কমে যাওয়ায় এখন লসের সম্মুখীন হচ্ছেন বলে জানান তিনি।

ওই বাজারের অপর ব্যবসায়ী ইসমাঈল হোসেন জানান, দেশে এখন ৮০ ভাগ পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। সংকটের সময় ভারতসহ আশেপাশের দেশ থেকে ২০ ভাগ পেঁয়াজ আমদানি করতে হয়। এ বছর দেশে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্তু গত কয়েকদিন আগে ভারতের বেঙ্গালুরে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পেঁয়াজের ব্যাপক ক্ষতি হয়। সেখানে পেঁয়াজের বাজার উর্ধ্বগতি দেখা দেয়। আর এ প্রভাব আমাদের দেশে পড়ে। তবে এ দাম বেশীদিন থাকবে না বলে তিনি জানিয়েছেন। অথচ তার ঘরে দেড় থেকে দু’শ বস্তা পেঁয়াজের মজুদ রয়েছে।

নগরীর ইকবাল নগরে পেঁয়াজ বিক্রেতা মোঃ হানিফ জানান, বড় বড় ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে এ পণ্যটির দাম বাড়িয়েছে। বাজারে বেশী পেঁয়াজের আমদানি হওয়াতে এখন দাম কিছুটা কমে গেছে।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা