• সোমবার   ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৪ ১৪২৯

  • || ১৫ রজব ১৪৪৪

ষাট গম্বুজ বার্তা

বাগেরহাটে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মত বিনিময় সভা

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২৩  

এক ভরি স্বর্ণ ও রুপা নিয়ে যারা ব্যবসা করেন, তারাও বাংলাদেশ জুয়েলার্স এ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)‘র সদস্য হবেন। সকল সদস্য একই মর্যাদা পাবেন সংগঠনের কাছে। হয়রানিমুক্ত স্বর্ণ ব্যবসা পরিচালনার জন্য বাজুস কাজ করছে। তবে ব্যবসা করতে হবে সততার সাথে। ২১ ক্যারেট বললে ২১ ক্যারেট-ই দিতে হবে। সৎ স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের পাশে সব সময় বাজুস থাকবে। কোন স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে অহেতুক হয়রানি করলে, বাজুস প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে। তবে কোন ব্যবসায়ী যদি জেনে-বুঝে চোরাই ও ভেজাল স্বর্ণ ক্রয়-বিক্রয় করেন, তাদের বিরুদ্ধে বাজুস সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহন করবে। শনিবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ জুয়েলার্স এ্যাসোসিয়েশন বাগেরহাট জেলা শাখা আয়োজিত মত বিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
শহরের কামারপট্টী এলাকায় অবস্থিত বাজুস বাগেরহাট জেলা শাখা চত্বরে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বাজুসের সহ-সভাপতি ডাঃ দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন। বাজুস বাগেরহাট জেলা শাখার প্রেসিডেন্ট শ্যামল কুমার সরকারের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন, বাজুসের ল এ্যান্ড মেম্বারশিপ বিষয়ক স্টান্ডিং কমিটির সদস্য সচিব মোঃ রিপনুল হাসান, ডিস্ট্রিক্ট মনিটরিং বিষয়ক স্টান্ডিং কমিটির সদস্য পবিত্র চন্দ্র ঘোষ, বাজুস খুলনা বিভাগীয় সভাপতি রকিবুল ইসলাম চৌধুরী, বাজুস বাগেরহাটের উপদেষ্টা সঞ্জয় কুমার বখসী, সাধারণ সম্পাদক নিলয় কুমার ভদ্র প্রমুখ।
দুপুর ১২ টায় কোরআন তিলওয়াতের মধ্য দিয়ে বাজুসের মত বিনিময় সভা শুরু হয়। পরে বাজুস কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি প্রয়াত আনিসুর রহমান দুলালের রুহের মাগফেরাত কামনায় এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাজুসের সহ-সভাপতি ডাঃ দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন বলেন, বাজুস এখন আর আগের জায়গায় নেই। এই সংগঠন এখন অনেক শক্তিশালি। বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর বাজুসের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকে সংগঠনের আমুল পরিবর্তন এসেছে। সংগঠনের কার্যক্রম বৃদ্ধির জন্য নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সদস্যদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে আমাদের প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর খুবই আন্তরিক।
এছাড়া বাংলাদেশে স্বর্ণ ব্যবসার প্রসারের জন্য বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে স্বর্ণ রিফাইনিং ফ্যাক্টরি করা হচ্ছে। যা খুবই দ্রুত চালু হবে। এই ফ্যাক্টরী চালু হলে মেড ইন বাংলাদেশ লেখা স্বর্ণের বার বাজারজাত করা হবে। শুধু দেশে নয়, বিদেশেও যাবে বাংলাদেশের স্বর্ণ। স্বর্ণ খাত থেকে বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে। এ জন্য সবাইকে বাজুসের সদস্য হয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে ব্যবসা করার আহবান জানান স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের এই নেতা।
মতবিনিময় সভায়, বাগেরহাট জেলা সদর ও বিভিন্ন উপজেলার স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহন করেন। বাজুসের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দের কাছে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। বাজুস নেতৃবৃন্দও সদস্যদের প্রশ্নের উত্তর দেন।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা