• সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩১ ১৪৩১

  • || ০৭ মুহররম ১৪৪৬

ষাট গম্বুজ বার্তা

বাগেরহাটে জামানত হারালেন ২১ প্রার্থী

ষাট গম্বুজ টাইমস

প্রকাশিত: ৯ জানুয়ারি ২০২৪  

বাগেরহাটের ৪ আসনে ২৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এর মধ্যে ২১ জন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন।

এদের মধ্যে দুজন স্বতন্ত্র ও বিভিন্ন দলের ১৯ প্রার্থী রয়েছেন।
নির্বাচনী বিধিমালা অনুযায়ী, কোনো প্রার্থীকে জামানত রক্ষা করতে হলে মোট কাস্টিং ভোটের ৮ শতাংশের থেকে একটি ভোট বেশি পেতে হবে। এর নিচে পেলে তিনি জামানত হারাবেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বাগেরহাট-১ (চিতলমারী, ফকিরহাট ও মোল্লাহাট) আসনে ৩ লাখ ৫২ হাজার ৮২১ ভোটের মধ্যে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৯৩ ভোট কাস্ট হয়েছে। এখানে ৬ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। বিজয়ী প্রার্থী শেখ হেলাল উদ্দিন পেয়েছেন ২ লাখ ১৯ হাজার ৯৩৯ ভোট। এ ছাড়া তার ৫ প্রতিদ্বন্দ্বী জামানত হারিয়েছেন। এরা হলেন- বাংলাদেশ কংগ্রেসের এইচ এম আতাউর রহমান আতিকী ১ হাজার ১৭৫ ভোট, এনপিপির বাসুদেব গুহ ২ হাজার ৬৫, জাতীয় পার্টির মো. কামরুজ্জামান ৫ হাজার ২১০, বিএনএমের মো. মঞ্জুর হোসেন শিকদার ২ হাজার ৭৯৬ ও তৃণমূল বিএনপির মো. মাহফুজুর রহমান পেয়েছেন ১ হাজার ৭৮৫ ভোট।

এদিকে বাগেরহাট-২ (সদর ও কচুয়া) আসনেও ৬ জন প্রার্থীর মধ্যে ৫ জনই জামানত হারিয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ২০ হাজার ১৪১ ভোটের মধ্যে ২ লাখ ৫ হাজার ৮৭২ ভোট কাস্ট হয়েছে। এখানে বিজয়ী প্রার্থী শেখ তন্ময় পেয়েছেন ১ লাখ ৮২ হাজার ৩১৮ ভোট। জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন- স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম আজমল হোসেন ১ হাজার ৪৫৫ ভোট, জাকের পার্টির খান আরিফুর রহমান ৩ হাজার ১৬৩, তৃণমূল বিএনপির মরিয়ম সুলতানা ২ হাজার ৭৬২, বিএনএমের সোলায়মান শিকদার ১ হাজার ৯০৭ ও জাতীয় পার্টির হাজরা শহিদুল ইসলাম পেয়েছেন ৪ হাজার ১৭৪ ভোট।

বাগেরহাট-৩ (মোংলা-রামপাল) আসনে বিজয়ী প্রার্থী নৌকার হাবিবুন নাহার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারাদারের জামানত রক্ষা হয়েছে। বিভিন্ন দলের অন্য ৫ প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। এ আসনে ২ লাখ ৫৪ হাজার ৮৫৮ ভোটের মধ্যে ১ লাখ ৪৭ হাজার ৯৩০ ভোট কাস্ট হয়েছে। এখানে বিজয়ী প্রার্থী হাবিবুন নাহার পেয়েছেন ৮৪ হাজার ৩৭২, স্বতন্ত্র প্রার্থী পেয়েছেন ৫৮ হাজার ৪৬৮ ভোট। জামানত হারানোরা হলেন- বাংলাদেশ কংগ্রেসের মফিজুল ইসলাম গাজী ২০৮, তৃণমূল বিএনপি ২২৮, জাতীয় পার্টির মো. মনিরুজ্জামান মনি ৬৭০, বিএনএম ৪২৩ ও জাসদের শেখ নুরুজ্জামান মাসুম পেয়েছেন ৩৩৮ ভোট।

অন্যদিকে বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলা) আসনেও ৭ প্রার্থীর মধ্যে ৬ প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। এ আসনে ৩ লাখ ৫৩ হাজার ৩১৪ ভোটের মধ্যে ২ লাখ ১৪ হাজার ৭৬৭ ভোট কাস্ট হয়েছে। এখানে বিজয়ী প্রার্থী নৌকার এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ পেয়েছেন ১ লাখ ৯৯ হাজার ৩৪ ভোট। জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন- বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের মুহাম্মদ বদরুজ্জামান ৯৯২, এনপিপির মোহাম্মদ লোকমান ১ হাজার ৬১১, বিএনএমের মো. রেজাউল ইসলাম রাজু ৬৩৬, তৃণমূল বিএনপির লুৎফুন নাহার রিক্তা ৬০৭, জাতীয় পার্টির সাজন কুমার মিস্ত্রি ২ হাজার ২২০ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এম আর জামিল হোসেন পেয়েছেন ৫৩৭৬ ভোট। তবে এর মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী এম আর জামিল হোসেন নির্বাচনের দিন দুপুরে ভোট বর্জন করেছিলেন।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহা. খালিদ হোসেন জানান, খুবই শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। ৪টি আসনের মধ্যে ২১ জন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী তারা সবাই কাস্টিং ভোটের ৮ শতাংশের কম ভোট পেয়েছেন। বিজয়ী ৪ প্রার্থী ও বাগেরহাট-৩ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারাদারের জামানত রক্ষা হয়েছে।

ষাট গম্বুজ বার্তা
ষাট গম্বুজ বার্তা